কাজী আরেফ আহমেদ

প্রাথমিক পরিচয়ঃ তখুড় আর নির্লোভ রাজনীতির এক বলিষ্ঠ উদাহরন মুক্তিযুদ্ধ আন্দোলনের জাতীয় বীর কাজী আরেফ আহমেদ। এই মহান ব্যক্তি ছিলেন স্বাধীন বাংলার পতাকা তৈরির অন্যতম রূপকার । বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত রচনাও এই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ সক্রিয় ভূমিকা রাখেন । বাংলাদেশের প্রথম বিরোধীদল জাসদ গঠনে অগ্রনী ভূমিকা পালন করেন এই জনদরদীনেতা। স্বাধীনতার সংগ্রামকালে এবং স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশের রাজনীতির এক বিশুদ্ধ চরিত্রের নাম মেধা ও প্রঙ্গায় দীপ্যমান আপসহীন নেতা কাজী আরেফ আহমেদ।

জন্ম ও বংশ পরিচয়ঃ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত মহিয়ান নেতা কাজী আরেফ আহমেদ ১৯৪৩সালে ৮ এপ্রিল কুষ্টিয়া জেলার সদর থানার ঝউদিয়া গ্রামে নানার বাড়িতে জন্ম গ্রহন করেন। তার বাবা ছিলেন কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর থানার কচু ডারিয়া গ্রামের সম্ভ্রান্ত কাজী পরিবারের বাসিন্দা । কাজী আরেফ আহমেদের বাবার নাম কাজী আব্দুল কুদ্দুস ও মা খোদেজা খাতুন।

শিক্ষা জীবনঃ মানব দরদী কাজী কাজী আরেফ আহমেদের শিক্ষা জীবন শুরু হয় ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলে প্রথম শ্রেণীতে ভর্তি হওয়ার মাধ্যমে এবং সেখান থেকেই তিনি ম্যাট্রিক পাশ করেন । এরপর জগন্নাথ কলেজে ইন্টারমিডিয়েটে ভর্তি হন । সেখান থেকেই ১৯৬৬ সালে বিএসসি পাশ করেন। এরপর মাস্টার ডিগ্রি অর্জনের জন্য তিনি ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগে। কিন্তু আন্দোলন ,সংগ্রাম আর আইয়ুব সরকারের নির্যাতনের ফলে মাস্টার ডিগ্রি অর্জন না করেই শিক্ষা জীবনের সমাপ্ত করতে হয়।

রাজনৈতিক জীবনঃ অনুকরনীয় রাজনীতিবিদ কাজী আরেফ আহমেদ রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন ১৯৬০সালে ছাত্রলীগে যোগদানের মাধ্যমে। অসামান্য সাংগঠনিক দক্ষতার অধিকারী আর সাহসী কাজী আরেফ আহমেদ অতিদ্রুত ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় পর্যায়ে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করেন । এসময় তিনি স্বাধীনতার লক্ষ্যে ছাত্র আন্দোলন সংগঠিত করতে ছুটে বেরিয়েছেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে । দৃঢ়তা আর সাহসিকতার পুরষ্কার স্বরূপ তিনি পান ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতির পদক । ১৯৬৩ থেকে১৯৭০ সাল পর্যন্ত তিনি ছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংসদের সদস্য । স্বাধীন জাতির রাষ্ট্র বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সিরাজুল আলম খান, আব্দুর রাজ্জাক ও তার নেতৃত্বে ১৯৬২ সালে ছাত্র লীগের অভ্যন্তরে গঠিত হয় স্বাধীনতার “নিউক্লিয়াস” যা পরবর্তীতে “স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ” নাম নেয়। ছাত্র আন্দোলনকে আরও বাগবান করার জন্য ১৯৬২ সালে তিনিই গঠন করেন “ইন্টার ডিগ্রি ছাত্র ফোরাম”। স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ বাঙালির জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে স্বাধীনতার অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌছানোর জন্য তিনি নিরলস পরিশ্রম করে যান । ১৯৬৪ সালে শাসক গোষ্ঠীর চক্রান্তে সংঘটিত সাম্প্রতিক দাঙ্গা প্রতিরোধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন কাজী আরেফ আহমেদ ।তার একক প্রচেষ্টায় ছাত্রলীগের উদ্যোগে ১৯৬৪ সালের ১৪থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পালন করা হয় বাংলা ভাষা প্রচলন সপ্তাহ । সেই দিন থেকে পূর্ব বাংলার অফিস-আদালত, দোকান পাট, গাড়ি সর্বত্র উর্দু ও ইংরেজীর পরিবর্তে বাংলা ভাষার প্রচলন শুরু হয়। ১৯৬৬সালে বঙ্গবন্ধু ছয় দফা ঘোষনা করলে অধিকাংশ নেতাসহ ডানপন্থী ও বামপন্থী নেতা মহল এর বিরোধিতা করে এই অবস্থায় কাজী আরেফ আহমেদ ও ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সাংসদ ছয় দফার পক্ষে দৃঢ় অবস্থান নেয়। এবং সম্পূর্ণ পরিস্থিতি পাল্টে দেন। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বঙ্গবন্ধু আটক হলে ছয় দফা আন্দোলন ৮৬ এর গণ আন্দোলন ,৬৯এর গণ অভ্যন্থান সংগঠনে ঢাকা মহানগরীতে কাজী আরেফ আহমেদের ভূমিকা অতুলনীয়। ১৯৭০ সালের ৭জুন স্বাধীনতা দিবসের আগে ৬ জুন রাতে কাজী আরেফ আহমেদ ও আসম আব্দুর রফ সহ স্বাধীন বাংলা পরিষদের অন্যান্য নেতারা জাতীয় পতাকার রূপদান করেন। পরদিন জয় বাংলা বাহিনীর কুচকাওয়াজে এই পতাকা বহন করা হয়। ১৯৭১সালের ২ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় স্বাধীন বাংলার ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভায় আসম আব্দুর রফ প্রথম ঐ পতাকা উত্তোলন করেন। সেই দিন থেকেই শুরু হয় বাংলাদেশে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন। কাজী আরেফ আহমেদ ছিলেন “বেঙ্গল লিবারেশন ফন্ট”(বিএফ আই)বা মুজিব বাহিনীর অন্যতম সংগঠন ছিলেন। ১৯৭১ সালের ৩০শে মার্চ তিনি মুক্তিযুদ্ধের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। পশ্চিম রণাঙ্গনে পাবনা,কুষ্টিয়া,চুয়াডাঙ্গা,যশোর,মেহেরপুর,ঝিনাইদাহ , মাগুরা, নড়াইল, খুলনা,বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, পটুয়াখালী বরিশাল, বরগুনা, পিরোজপুর , গোপালগঞ্জ , রাজবাড়ি, ও ফরিদপুর নিয়ে গঠিত অঞ্চলের রিক্রটমেন্ট প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১সালের ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে ঢাকায় প্রত্যাবর্তন করেন। মুক্তিযুদ্ধফেরত এক ঝাঁক উদীয়মান তরুণদের নিয়ে ১৯৭১সালে কাজী আরেফ গঠন করেন জাসদ ।১৯৭৫সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর অবৈধ ক্ষমতা দখল ও সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক প্রতিরোধ গড়ে তুলেন। স্বৈরশাসক এরশাদের বিরুদ্ধে দীর্ঘ আট বছরের লড়াইয়ে রাজপথে যে জোটটি পরিণত হয়ে উঠেছিল আন্দোলন সংগ্রামের চালিকা শক্তি , সেই “পাঁচ দল” এর শীর্ষ নেতৃত্ব ছিলেন তিনি। ফলশ্রুতিতে তাকে দীর্ঘদিন কারাভোগ করতে হয়। ১৯৯০ এর ঐতিহাসিক গণভ্যুত্থানের অন্যতম প্রধান সাহসী রূপকার ছিলেন তিনি। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পূর্ণ প্রতিষ্ঠা ও যুদ্ধাপরধীদের বিচারের দাবিতে জননী জাহানারা ইমামকে সাথে নিয়ে গঠন করেন ১৯৭১এর ঘাতক দালাল নির্মূল জাতীয় সমন্বয় কমিটি ।তিনি এর কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য । ষাটের দশকের শুরু থেকে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত জাতীয় রাজনীতির গতি প্রবাহ নিয়ন্ত্রন করে কাজী আরেফ আহমেদ এক বিচক্ষন রাজনীতির ভূমিকা পালন করেন।

পারিবারিক জীবনঃ বিপ্লবী বীর কাজী আরেফ আহমেদের স্ত্রীর নাম সংসদ সদস্য রওশন জাহান সাথী। তিনিও একজন বীর মুক্তিযুদ্ধা।  ১৯৭১এর মুক্তিযুদ্ধে কাজী আরেফের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঢাকায় মুক্তিযুদ্ধ করেন। মুক্তিযুদ্ধথেকে শুরু করে জাসদ প্রতিষ্ঠা , স্বৈরচার সরকার বিরুধী আন্দোলন সকল ক্ষেত্রেই কাজী আরেফের একজন সক্রিয় কর্মীর নাম স্ত্রী রওশন জাহান সাথী। রাজনৈতিক জীবনের বাইরে তারা গড়ে তুলেছিল এক শান্তিময় নীড়।নির্লোপ এই দুজন রাজনীতিবিদদের অর্থের প্রতি কোন লোভ ছিলনা। তাই তাদের বাড়িতে স্থান পায়নি দামী দামী আসবাবপত্র। স্বামী স্ত্রী এক হয়ে কাজ করেছেন মেহনতি এবং শ্রমজীবি মানুষের পক্ষে গড়েছেন এক অনুকরনীয় পারিবারিক জীবন।

মৃত্যুঃ শোষন মুক্ত অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠার নেতা জীবনের শেষ জীবনের শেষদিন পর্যন্ত শ্রমজীবি ,কর্মজীবী , পেশাজীবি জনগনের অধিকার ,ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শ্রমকর্ম পেশার প্রতিনিধি এবং স্থানীয় সরকার প্রতিনিধি হয়ে সমগ্র দলকে একাত্নতার জন্য কাজ করেছেন । সন্ত্রাস আর জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে তিব্র আন্দোলন গড়ে তুলতে তিনি বিভিন্ন জায়গায় সভা সমাবেশ করেন । তারই অংশ হিসেবে ১৯৯৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি যান কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার কালিদাসপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের জাসদের মঞ্চে। এটিই তার জীবনের শেষ সভা । সেই দিন জাতীয় বীর কাজী আরেফ আহমেদ সহ আরো কয়েকজন জাসদনেতাকে নির্মম ভাবে গুলি চালিয়ে হত্যা করে একদল অস্রধারী সন্ত্রাসী। প্রত্যক্ষ দর্শীদের মতে ঐ দিন বৃষ্টির মতো গুলি ছোড়া হয়েছিল।

====০০০=====